আপডেট ১০ মিনিট ৫৫ সেকেন্ড

ঢাকা শনিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৬ , হেমন্তকাল, ২০ সফর, ১৪৪১

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন, সড়ক সংবাদ সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে অবাধে বালু উত্তোলন: হুমকির মুখে বঙ্গবন্ধু সেতু

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে অবাধে বালু উত্তোলন: হুমকির মুখে বঙ্গবন্ধু সেতু

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে অবাধে বালু উত্তোলন: হুমকির মুখে বঙ্গবন্ধু সেতু

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে অবাধে বালু উত্তোলন: হুমকির মুখে বঙ্গবন্ধু সেতু

টাঙ্গাইল, ২৯ মে ২০১৬, , নিরাপদনিউজ: সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে অবাধে বালু উত্তোলন করায় চরম হুমকির মুখে পড়েছে বঙ্গবন্ধু সেতু। বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপাড়ে যমুনার উত্তর ও দক্ষিণ পাশে ভূঞাপুর ও কালিহাতী অংশে স্থানীয় বালু ব্যবসায়ীরা পৃথক পুথক সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। দেদারসে চালাচ্ছে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ১২টি ঘাটের মাধ্যমে অবাধে বালু উত্তোলন। এর ফলে দেশের বৃহত্তর স্থাপনা বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপাড় চরম হুমকিতে পড়েছে। পাশপাশি এ বালু মহালের ভাগবাটোয়ারা নিয়ে সিন্ডিকেটে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় স্বার্থ বিবেচনা করে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বার বার নিষেধ করা সত্ত্বেও বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পাড়ের উত্তরে ভূঞাপুর ও দক্ষিণে কালিহাতী উপজেলার অংশে পৃথক দুইটি সিন্ডিকেট অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও পরিবহন করছে। এর মধ্যে উত্তর অংশে ভূঞাপুর উপজেলার সিরাজকান্দি, নিকরাইল ও গোবিন্দাসী এলাকায় ৮টি পৃথক পৃথক স্থানে স্থানীয় প্রভাবশালী আ. হাই, মো. ফিরোজ, আ. সামাদ, মাসুদ মেম্বার, হাবিব মাষ্টার, ফেরদৌস প্রামাণিক, মো. দুলাল চকদার ও আ. মতিন সরকার সেতু বিভাগের পুকুরের পাড় দিয়ে বালু পরিবহনের রাস্তা তৈরি করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও দেশব্যাপী সরবরাহ করছেন।
অপরদিকে, পূর্বপাড়ের দক্ষিণাংশে সেতুর প্রায় ৩০০ গজ দক্ষিণে কালিহাতী উপজেলার বেলটিয়া, শামশৈল, চরসিঙ্গুলী ও আলীপুর মৌজায় ড্রেজার বসিয়ে আড়াই মাস ধরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। কালিহাতী উপজেলার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হযরত আলী তালুকদার, প্রভাবশালী হান্নান হাজী, ছোট আ. হাই আকন্দ ও লিয়াকত আলী তালুকদারের নেতৃত্বে একাধিক স্পটে পৃথক ৪টি ঘাট স্থাপন করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও সরবরাহ করা হচ্ছে। উত্তোলন করা বালুভর্তি ট্রাকগুলো সেতু সংলগ্ন গ্যাসফিল্ডের ওপর দিয়ে প্রতিনিয়ত যাতায়াত করছে। এতে দুর্ঘটনার আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে।
এদিকে, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন-৩ শাখার স্মারক (নং-৪২.০০.০০০০.০৩৬.১৪.০১১.১৪-৭০৬, তাং-০৩/১১/২০১৫ইং) এর পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সেতু বিভাগ উপরোল্লেখিত এলাকায় বালু উত্তোলন ও সরবরাহ বন্ধে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসকের কাছে পত্র দিয়েছে।
সেতু বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব মাহমুদ ইবনে কাসেম স্বাক্ষরিত পত্রে (স্মারক নং-৫০.০০.০০০০.২০১.৩১.০০১.১৫-২৬, তাং-১৩/০১/২০১৬ইং) বলা হয়েছে, বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ বালু উত্তোলন বা স্তুপের জন্য কোনো জমি কখনো ইজারা দেয়নি বা দেয়া হয় না। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসকের আপত্তি ও মতামতের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বালু পরিবহন কাজে কন্ট্রাক্ট-৭ সড়কের পুকুরের মধ্যবর্তী পাড়গুলোর ইজারা বন্ধ রাখা হয়েছে।
সরেজমিন ঘুরে ও স্থানীয়দের অভিযোগে জানা যায়, বালু মহালের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে যমুনায় জোড়া খুন, এলাকা ভিত্তিক নানা দ্বন্দ্ব, হামলা, মামলা ও সংঘর্ষের কারণে যমুনা নদীর ভূঞাপুর ও কালিহাতী অংশে দীর্ঘ দিন বালু উত্তোলন বন্ধ ছিল। আওয়ামী লীগ নামধারী স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি ও জলদস্যুদের সহযোগিতায় যমুনা নদীতে ড্রেজার বসিয়ে দেদারছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। অবৈধ বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে নদীতে ক্রমেই বাড়ছে অপরাধ প্রবণতা। বালু মহাল থেকে উপার্জিত অর্থের একটি অংশ চলে যাচ্ছে প্রশাসন ও জলদস্যুদের হাতে। নয়া উদ্যমে বালু উত্তোলন শুরু করায় এলাকাভিত্তিক পুরনো দ্বন্দ্ব আবার প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। যে কোনো সময় বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
স্থানীয় ড্রেজার মালিকদের দাবি, বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের এ সাইটের প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদের মৌখিক অনুমতি নিয়েই এই বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। তারা আরও জানান, বিবিএ ও সেতু রক্ষণাবেক্ষণকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্থানীয় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সেতু ও সেতু রক্ষাকারী বেড়িবাঁধ সংলগ্ন এলাকা থেকে বালু উত্তোলন ও বালু সরবরাহ করার রাস্তা তৈরি করার মৌখিক অনুমতি দেন।
স্থানীয় কয়েকজন বালু ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রশাসন, আওয়ামী লীগ নেতা ও দুই একজন এমপিকে নজরানা দিয়ে তাদের এই ব্যবসা পরিচালিত হচ্ছে। ওইসব বালু ঘাট থেকে প্রতিদিন ৭-৮ শ’ ট্রাক বালু সরবরাহ করা হচ্ছে। এসব মহাল থেকে উত্তোলন করা বালু বিক্রি হচ্ছে রাজধানী ঢাকা, গাজীপুর, ময়মনসিংহ, জামালপুর, মানিকগঞ্জ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জসহ আশপাশের কয়েকটি জেলায়। তারা আরও জানায়, প্রতি মাসে বালু মহাল থেকে তাদের আয় হয় কোটি টাকা। এখান থেকে সরকারকে রাজস্ব দিতে হয় না কানাকড়িও। এ বালু মহালের অধিকাংশ লভাংশই হাতিয়ে নিচ্ছেন তারা ।
সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, যমুনা নদী শাসনের লক্ষ্যে ক্যাপিটাল ড্রেজিং অব রিভার সিস্টেম ইন বাংলাদেশ প্রকল্পের আওতায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) দুই দফা নদী খনন ও ক্রসবাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করে। প্রথম দফায় ২০১০ সালে ৩৯ কোটি টাকা ব্যয়ে গোপালপুর উপজেলার নলিন পয়েন্টে ৩ কিলোমিটার ক্রসবাঁধ নির্মাণ এবং নদীর পশ্চিম অংশে ২ কিলোমিটার নদী খননের কাজ করা হয়। এতে ভাটিতে ভূঞাপুর উপজেলার গাবসারা ইউনিয়নে ৩ হাজার একর জায়গা জুড়ে নতুন চর জেগে ওঠে। অসাধু বালু ব্যবসায়ীরা প্রভাব খাটিয়ে নতুন চর থেকে নির্বিচারে বালু সংগ্রহ করায় গত বছর বর্ষা মৌসুমে স্রোতের টানে পুরো চর নদীতে বিলীন হয়ে যায়।
পানি উন্নয়ন বোর্ড দ্বিতীয় দফায় ২০১১ সালে ৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে সোনামুই থেকে যমের বয়ড়া পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার ক্রসবাঁধ এবং পশ্চিম-দক্ষিণে ৩ কিলোমিটার নদী খনন করে। এবার ভূঞাপুরের চরবরুয়া, চরশাখারিয়া ও জগৎপুরা গ্রামে প্রায় দেড় হাজার একর জায়গায় নতুন চর জেগে ওঠে। এর ফলে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে গোপালপুর ও ভূঞাপুর উপজেলায় ভাঙন বন্ধ হবে এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ রক্ষা পাবে।
কিন্তু প্রভাবশালী বালু ব্যবসায়ীরা জেগে ওঠা চরের বালু ড্রেজার দিয়ে উত্তোলন ও সরবরাহ করে অবৈধ বালু ব্যবসার কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ওই টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে বালু ব্যবসায়ী ও জলদস্যুদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছ। যে কোনো সময় রক্ষক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। ফলে সেতু সংলগ্ন ক্রসবাঁধ এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে দেশের বৃহত্তর স্থাপনা বঙ্গবন্ধু সেতু হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে।
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বিবিএ) এ সাইডের প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ জানান, বালু উত্তোলন বা সরবরাহের কোনো অনুমতি তারা দেননি। টাকা নিয়ে বালু উত্তোলন বা সরবরাহ করার সুযোগ দেয়ার প্রশ্নই ওঠে না। টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. মাহবুব হোসেন জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বালু উত্তোলনের কোনো অনুমতি দেয়া হয়নি। সেতু কর্তৃপক্ষও ইজারা দেয়নি। ওই এলাকায় সেতু কর্তৃপক্ষের সরাসরি তদারকি থাকলেও অজ্ঞাত কারণে অবৈধ বালু উত্তোলনকারীরা সুযোগের সদব্যবহার করছে।
জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এর আগে ‘টিনশেড’ বেড়া দিয়ে বালু পরিবহনের সড়ক বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। রাতের আঁধারে সেই বেড়া সরিয়ে ফেলা হয়েছে। তাছাড়া জেলা প্রশাসনের আওতাধীন এলাকায় মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য: (পাঠকের কোন মন্তব্যের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ক্রমে দায়ী নয়)